ঢাকায় এলাকা ভিত্তিক লকডাউনের মডেল টোলারবাগ, মিরপুর-১

বাংলার কলম বাংলার কলম

নিজস্ব ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ, জুন ১০, ২০২০ | আপডেট: ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ

প্রথম রোগী সনাক্তকরন থেকে শুরু করে তাঁদের সংস্পর্শে প্রত্যেক ব্যাক্তিকে খুঁজে (contact tracing) বের করে কোয়ারেন্টাইন রাখা, ভিতরে ও বস্তিতে খাদ্য সরবরাহ চালু রেখে সম্পূর্ন এলাকা লকডাউন করে রোগের বিস্তার রোধ করা সবই সম্ভব হয়েছে IEDCR এবং টোলারবাগের মালিক সমিতি ও বাসিন্দাদের সহযোগিতায়। IEDCR এর নির্দেশনা মেনে প্রতিটি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হয়েছে স্থানীয় বাসিন্দাদের মাধ্যমে। এক্ষেত্রে এলাকাবাসীর সকল ধরনের সহেযোগিতা ছিল অত্যন্ত প্রশংসিত।স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, কোয়ারেন্টাইনে থাকা, নতুন উপসর্গ দেখা দিলে তার নমুনা সংগ্রহ করা, রোগীকে হাসপাতালে প্রেরন করে চিকিৎসা নিশ্চিত করা সবই ছিল অত্যন্ত গোছানো।

টোলারবাগ, মিরপুর-১ হতে পারে এলাকা ভিত্তিক লকডাউনের ঢাকা মডেল। মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব আসলামুল হক এর সার্বিক তও্বাবধোনে এবং দিকনির্দেশনায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মাননীয় মেয়র, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মামুন, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি জনাব হাবিবুর রহমান, ঢাকা জেলার সিভিল সার্জন, স্থানীয় কাউন্সিলর, মিরপুর জোনের ডিসি, এডিসি,এসি, দারুসসালাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সহযোগিতা, বাড়ি মালিক সমিতির অক্লান্ত পরিশ্রম এবং স্থানীয় জনগনের সম্পৃক্ততায় কত সফলভাবে করোনা প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রন করা যায় তার বাস্তব উদাহরন হচ্ছে টোলারবাগ।

এক্ষেত্রে IEDCR এর পক্ষ থেকে সার্বক্ষনিক কাজ করেছেন ডা: মো: জাহিদুর রহমান, মেজর ফারুক আহমেদ, মিসেস শানু, টোলারবাগের পক্ষ থেকে সকল ধরনের তথ্য আদান প্রদান ও সহযোগিতা করেছেন ডা: কাজী আয়শা সিদ্দীকা বর্না, স্বাস্হ্য কর্মকর্তা সাভার পৌরসভা এবং মিরপুরের স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মডেল একাডেমির প্রধান শিক্ষক ও উত্তর টোলারবাগ বাড়ি মালিক সমিতির সভাপতি শুভাশীষ বিশ্বাস সহ উত্তর টোলারবাগ মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ এবং দারুস সালাম থানা আওয়ামীলীগ এর সাধারন সম্পাদক কাজী ফরিদুল হক হ্যাপি।তাঁদের সবার অক্লান্ত পরিশ্রম ও সকলের সহযোগিতায় প্রায় এক মাসের মধ্যে টোলারবাগের করোনা পরিস্থিতি সম্পূর্ন নিয়ন্ত্রনে চলে আসে। এখানে একটি বিষয় উল্লেখ্য যে মাননীয় সংসদ সদস্য নিজে গভীর রাত পর্যন্ত অসুস্থ রোগীদের হাসপাতাল নেওয়া , সেখানে ভর্তি করা থেকে সার্বিক সহযোগিতা করেন।ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সবচেয়ে নিরাপদ ও ঝুঁকিমুক্ত এলাকা হচ্ছে টোলার বাগ আবাসিক এলাকা। তাঁদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে অন্যান্য জায়গায় একই ধরনের পদক্ষেপ নিলে করোনা মোকাবেলায় আরও ভালকিছু করা অবশ্যই সম্ভব। ডা: কাজী আয়শা সিদ্দীকা নিজ উদ্যোগে তার বাসার নিচে IEDCR এর অস্থায়ী ক্যাম্প তৈরি করে দেন, সেখানে থেকে সামগ্রিক কাজ পর্যালোচনা করা হতো।

বার্তা প্রেরকঃ মোঃ নাফিছ পাটোওয়ারী