চরফ্যাশনে আরো ১০ জনের করোনা শনাক্ত, দুটি ডায়াগন্টিক সেন্টার লকডাউন

প্রকাশিত: ৯:৪০ অপরাহ্ণ, জুন ১৪, ২০২০ | আপডেট: ৯:৪০ অপরাহ্ণ

ভোলার চরফ্যাশনে গত ২৪ ঘন্টায় সাবেক উপ-জেলা চেয়ারম্যান, দুই চিকিৎসক, দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ১০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার শোভন কুমার বসাক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে রবিবার দুইটি ডায়াগন্টিক সেন্টারকে লকডাউন করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাহীন মাহমুদ।

গত ২৪ ঘন্টায় করোনা শনাক্ত হলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শাহেদ আলী মিয়া, চরফ্যাশন হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ অভিষেক , ডাঃ রাসেল আহামেদ ভুইয়া, স্টাফ হাফিজ, চরফ্যাশন থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক ফোরকান, মাসুদ,

করিমজান মহিলা মাদ্রাসার প্রভাষক সরওয়ার উদ্দিন, চরফ্যাশন বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কামাল উদ্দিন, পৌরসভা ১ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আল-আমিন ফাহিম, চরফ্যাশন ইলেকশন অফিসের স্টাফ ইশতিয়াক আহমেদ।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ শোভন বসাক জানান, দুই চিকিৎসকের করোনা উপসর্গ থাকায় তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরিক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিলো। রোববার তাদের ফলাফল পজেটিভ আসে। এনিয়ে চরফ্যাসন হাসপাতালে ৪ চিকিৎসকের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত ৪ চিকিৎসকে আইসোলেশনে রেখে প্রাথমিক চিকিৎসা চলছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি )ও নির্বাহী ম্যাজিট্রেট শাহীন মাহামুদ জানান, আক্রান্ত দুই চিকিৎসক মজুমদার ল্যাব ও মেঘনা ডায়াগন্টিক সেন্টারে প্রাইভেট রুগি দেখতেন । দুইটি ডায়াগন্টিক সেন্টারকে লকডাউন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, চরফ্যাশনে প্রায় ৩৫০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৩০০ জনের রিপোর্ট আসে। তার মধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন আখন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শাহেদ আলী মিয়া, চার চিকিৎসকসহ ২৩ জনের ফলাফল পজেটিভ আসে।